বুধবার, জানুয়ারি ২৭, ২০২১

পদ্মানদীকে কেন্দ্র করে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার উদ্যোগ শিবচরে

ভাষান্তর: | বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

রিয়ান মাহমুদ রিয়াদ শিবচর, (মাদারীপুর) প্রতিনিধি: পদ্মানদীকে কেন্দ্র পর্যটন কেন্দ্র হচ্ছে শিবচরে। এখানে পর্যটকদের জন্য পদ্মানদীতে সুন্দর নৌকায় থাকছে ভ্রমনের সুযোগ, নদীর চরে তাজা ইলিশ ভেজে খাওয়ার ব্যবস্থা। মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড.রহিমা খাতুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গত মঙ্গলবার (২৯/১২/২০২০) সকালে কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদে ‘জেলেদের জীবন যাত্রার মানোন্নয়ন ও পর্যটন শিল্পের বিকাশ নিয়ে জেলা প্রশাসন আয়োজিত জেলেদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক এক কথা বলেন। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) খায়রুল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বিএম আতাউর রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম রাকিবুল হাসান, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ফেরদৌস ইবনে রহিম,শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিরাজ হোসেন, কাঁঠালবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মহসেনউদ্দিন সোহেল, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ইলিয়াস পাশাসহ স্থানীয় ২ শতাধিক জেলে উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভা শেষে জেলা প্রশাসক পদ্মনদীর সম্ভাব্যস্থান সমূহ ঘুরে দেখেন। জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, ‘পদ্মাসেতুকে ঘিরে শিবচরের সেতু সংলগ্ন পদ্মানদীতে ভ্রমনে আসে দূর দূরান্ত থেকে অসংখ্য মানুষ। এখানে নদীকেন্দ্রিক পর্যটনের অপার সম্ভবনা রয়েছে। নদীকেন্দ্রিক পর্যটনের ব্যবস্থা হলে এখানকার জেলেদেরও জীবন ব্যবস্থার উন্নয়ন হবে। নদীতে একাধিক সুন্দর করে সাজানো নৌকা থাকবে।

ভ্রমনপ্রেমীরা নৌকায় করে নদীর নির্দিষ্ট এলাকা ঘুরতে পারবে। নদীর চরে ইলিশ মাছ বিক্রির দোকান থাকবে। ঘুরতে আসা মানুষ জেলেদের নৌকা থেকে মাছ কিনে সেখানে ভেজে খেতে পারবেন। পর্যটকদের কাছে পদ্মাসেতু, নদী এবং এই চরাঞ্চল বেশ উপভোগ্য। অনেকেই আসেন এখানে। দূর থেকে পদ্মাসেতু দেখেন। তাদের জন্য পর্যটনের উপযোগী করতে নানা পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। আগামী ৪ জানুয়ারি থেকে কাঁঠালবাড়ী ঘাট সংলগ্ন পদ্মানদীতে ঘুরে বেড়ানোর জন্য দৃষ্টিনন্দন নৌকা দিয়ে পর্যটনের প্রথম ধাপ শুরু হচ্ছে বলে মতবিনিময় সভায় জানা যায়।

জেলা প্রশাসক আরো বলেন, স্থানীয় জেলেদের মধ্যে যারা মাছধরা পেশার পাশাপাশি পর্যটনের অংশ হিসেবে নৌকা তৈরি করে পর্যটকদের সেবা দেবে তাদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে নৌ ভ্রমনে প্রশাসন ঘন্টা প্রতি নির্ধারিত একটি ভাড়া নির্ধারণ করে দেবেন এবং নৌকাগুলোতে লাইফ জ্যাকেটসহ ভ্রমন এলাকাতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া আগামীতে পর্যটকদের সুবিধা ও নিরাপত্তা জোরদার নিশ্চিতে এক ধরনের অ্যাপস্ তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে। পদ্মাসেতু সংলগ্ন নদীকেন্দ্রিক পর্যটন শিল্পের অগ্রসরে নৌকার ট্রাকিং এর জন্য অ্যাপস্ থাকবে। পর্যটকদের নিয়ে নৌকায় নদীর কোথায় যাচ্ছে তা জানা যাবে এবং অ্যাপসের মাধ্যমে পর্যটকগণ নৌকার খোঁজ খবর রাখতে পারবেন।

শেয়ার করুন: